মার্কেট টিকার    

আইপিওতে ৫৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে বেঙ্গল পলি



প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাজারে শেয়ার ছেড়ে ৫৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে বেঙ্গল পলি অ্যান্ড পেপার স্যাক লিমিটেড। বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে বাজারে আসবে এই কোম্পানিটি। এর অংশ হিসেবে আজ রোববার রাজধানীর গুলশানের লেক শোর হোটেলে রোড শোর মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে কোম্পানিটির বিভিন্ন দিক এবং ভবিষ্যত পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়েছে।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসই) অনুমতি পেলে প্রথমে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রি করবে। পরে সাধারণ জনগণের কাছে শেয়ার বিক্রি করা হবে। যে দামে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য সংরক্ষিত কোটার শেয়ার বিক্রি শেষ হবে, সে দামে জনসাধারণের কাছে শেয়ার বিক্রি করার প্রস্তাব দেওয়া হবে।

৫৫ কোটি টাকা সংগ্রহের জন্য যতগুলো শেয়ার বিক্রি করা প্রয়োজন, ততগুলো শেয়ার ইস্যু করবে কোম্পানিটি।

বেঙ্গল পলি আইপিওর মাধ্যমে সংগৃহীত অর্থের প্রায় ৬২ শতাংশ তথা ৩৪ কোটি টাকা ব্যয় করবে ব্যবসা সম্প্রসারণে। এই অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি তৃতীয় ইউনিট স্থাপন করবে, যেখানে জাম্বু সাইজ (বড় আকারের) পলি ব্যাগ উৎপাদন করবে। এই ইউনিট হবে শতভাগ রপ্তানিমুখী-রোড শোতে এমটিই জানানো হয়েছে।

কোম্পানিটি আইপিওর ৩২ শতাংশ অর্থ দিয়ে ঋণ পরিশোধ করবে, এর পরিমাণ ১৮ কোটি টাকা।

পুঁজিবাজার থেকে সংগ্রহ করা অর্থের মধ্য থেকে ২৬ কোটি ৬২ লাখ ৬৭ হাজার ৪০০ টাকা ব্যয় করা হবে নতুন যন্ত্রপাতি আমদানিতে। জমি ও কারখানা ভবনের অবকাঠামো উন্নয়নে ব্যয় করা হবে ৩ কোটি ৭৭ লাখ ৩২ হাজার ৬০০ টাকা। গভীর নলকূপ স্থাপনে ১০ লাখ টাকা, বৈদ্যতিক তার ও লাইন স্থাপনে দেড় কোটি টাকা। সাব স্টেশন ও অন্যান্য বিষয়ে ২ কোটি টাকা, ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ১৮ কোটি টাকা।

কোম্পানির ৩ কোটি টাকা ব্যয় হতে পারে আইপিও প্রক্রিয়ার জন্য।

যেসব মেশিন কেনা হবে তার মধ্যে রয়েছে, টেপ লাইন ৯০০ কেজি, সিমেন্ট ব্যাগ তৈরিতে লুম নোভা-৬, সাদা ব্যাগ তৈরিতে নোভা-৬ এবং অটো কাটিং অ্যান্ড সুইমিং মেশিন। যা কোরিয়া, চীন, জাপান ও তাইওয়ান থেকে আমদানি করা হবে।

কোম্পানির প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য ১০ টাকা। কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ১০০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ২৮ কোটি ৬ লাখ টাকা।

৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস (ওয়েটেড এভারেজ) হয়েছে ২ টাকা ৭১ পয়সা। যা আগের বছর এই ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৩৫ পয়সা।

আলোচ্য বছরে কর পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ৭ কোটি ৬০ লাখ ৮৬ হাজার টাকা। যা এর আগের বছরে ছিল ৮ কোটি ৫ লাখ ৯৯ হাজার টাকা। সর্বশেষ সম্পদ পুনর্মূল্যায়ন শেষে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা ৯৭ পয়সা। আর সম্পদ পুনর্মূল্যায়ন বাদ দিলে শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য হয় ২২ টাকা ৮০ পয়সা।

কোম্পানিটি মূলত পলি ব্যাগ, সিমেন্ট ব্যাগ, সাদা ব্যাগ, মাছ ও মুরগীর খাবারের ব্যাগ ও এফআইবিসি বা জাম্বু ব্যাগ তৈরি করে। জাম্বু ব্যাগ শতভাগ রপ্তানিমুখী।


Share on Google+

 


Company Name: #N/ASector Name: #N/A
Business: #N/A
Address: #N/A
Phone: Email:
Total Shares: #N/APublic: #N/A ()
Director: #N/A ()Institute: #N/A ()
Government: #N/A ()Foreign: #N/A ()
Category: #N/AYear Closing: #N/A
EPS (D&A): #N/ANAV:
Click for Company Details
** Now under updating process. Human error and software bug might some times show erroneous report. We never claims 100% accuracy of the data & analysis presented above. If any error is detected, it would be addressed instantly.



মুদ্রার হার

নামাজের সময়সূচি