z

অর্থ আইন ২০২০ ও ব্যবসা বাণিজ্যে এর প্রভাব শীর্ষক আইসিএসবির সিপিডি প্রোগ্রাম আয়োজিত



ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি) শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০ তারিখে 'অর্থ আইন ২০২০ ও ব্যবসা বাণিজ্যে এর প্রভাব' শীর্ষক সিপিডি সেমিনার ভার্চুয়ালি আয়োজন করে। ব্যারিস্টার নিহাদ কবির, মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এমসিসিআই) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। ইনস্টিটিউটের সদ্য প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট সাব কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এফসিএস সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতিত্ব করেন। মোজাফফর আহমেদ এফসিএস, প্রেসিডেন্ট, আইসিএসবি স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। মোহাম্মদ ইকবাল চৌধুরী এফসিএস, চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার (সিএফও), লাফার্জ হলসিম বাংলাদেশ অর্থ আইন ২০২০ ও ব্যবসা বাণিজ্যে এর প্রভাব শীর্ষক মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। মূল প্রবন্ধ এর উপর মনোনীত আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কাজী আশিকুর রহমান এফসিএস, সিনিয়র ম্যানেজার-কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স, সিঙ্গার বাংলাদেশ লিমিটেড এবং মোঃ কাউছার আলম এফসিসিএ, এফসিএমএ, এফসিএমএ, চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার এবং কোম্পানি সেক্রেটারি, সেভেন সার্কেল বাংলাদেশ লিমিটেড।

ইনস্টিটিউটের প্রেসিডেন্ট মোজাফফর আহমেদ এফসিএস তার স্বাগত বক্তব্বে সকলকে যোগদানের জন্য ধন্যবাদ জানান এবং আশা করেন যে এই অধিবেশনটির মাধ্যমে সদস্যরা উপকৃত হবেন। তিনি বলেন যে, আইসিএসবি অন্যান্য পেশাদার প্রতিষ্ঠানের মতো প্রতি বছর এনবিআরকে সুপারিশ দেয়। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে বেসরকারী খাতের আর্থিক সংস্থানের ঘাটতি হতে পারে কারণ ব্যাংকগুলি ভাবছে যে বেসরকারী খাতগুলোতে এই কোভিড পরিস্থিতিতে অর্থ সংস্থানে ঝুঁকি রয়েছে।

মূল প্রবন্ধ এর উপস্থাপক তার উপস্থাপনায় স্পষ্টভাবে দেখিয়েছিল যে কীভাবে ভ্যাট আইন ১৯৯১-এর বিধি বিধানগুলো ফিনান্স অ্যাক্ট ২০১২ থেকে ফিনান্স অ্যাক্ট- ২০২০ এর মধ্যে সন্নিবেশিত হয়েছে। তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে নতুন ভ্যাট আইনের উদ্দেশ্য ছিল বিধি ও আইন সমূহকে আরও বিস্তৃত এবং ব্যবহারকারী-বান্ধব উপায়ে সাধারনীকরণ করা যাতে এটি ব্যবহারকারীর জন্য সহজে বোধগম্য, সহজ এবং নির্ভরযোগ্য হয়ে উঠে। ফিনান্স অ্যাক্ট ২০২০ এর পরিবর্তনের সাথে ভ্যাট আইন ২০১২ এর মূল চেতনা পরিবর্তিত হয়েছে। তিনি বিস্তারিতভাবে ব্যক্তিগত ও কর্পোরেট ট্যাক্স এবং ভ্যাট এর বৃদ্ধি, হ্রাস ও বর্ধনের বিষয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে প্রচারমূলক ব্যয়ের জন্য টার্নওভার ০.৫% (পূর্বে ১.২৫%) সীমাবদ্ধ করা বিপর্যয়কর এবং ব্যবসায়ের বৃদ্ধিতে বাধা হয়ে দাঁড়াবে যা এনবিআরের রাজস্ব ক্ষতির কারণ হতে পারে। তিনি করের হার বাড়ানো চেয়ে করের বিস্তৃতি বৃদ্ধির কথা, নীতিমালায় ঘন ঘন পরিবর্তন এড়াতে এবং কমপক্ষে ৩-৫ বছরের জন্য ট্যাক্স নীতি বজায় রাখতে, ট্যাক্স নীতিমালায় কোনও বড় পরিবর্তন করার আগে প্রভাব অধ্যয়ন পরিচালনা করতে বলেন।

মোঃ কাউছার আলম এফসিএস তার আলোচনায় বলেন যে এই অর্থ আইনটি নিয়ে স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য উচ্চ প্রত্যাশা রয়েছে। এতে ভ্যাট ঘোষণা, কর্তৃপক্ষের অনুমোদন, একক ভ্যাট নিবন্ধন, ভ্যাট অনলাইন, অনলাইন মূল্যায়ন এবং আরো অনেক বিপ্লবী দিক রয়েছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে, আইন এবং বাস্তবতা আলাদা যেমন ভ্যাট ছাড় সংকুচিত করা। ব্যবসায়ী সম্প্রদায় এবং পেশাদাররা এখনও রাজস্ব উপযোগী স্বয়ংক্রিয় অনলাইন ভ্যাট সিস্টেম আশা করছেন। যেখানে ই-পেমেন্ট ও অনলাইন মূল্যায়ন থাকবে এবং ভ্যাট কর্তৃপক্ষের সাথে কম সরাসরি মিথস্ক্রিয়ার মাধ্যমে সামগ্রিক ভ্যাট এবং এসডি পরিবেশ উন্নত হবে। এনবিআর, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এবং আইসিএসবির মতো পেশাদার সংস্থাগুলি ভালো ফলাফল পাওয়ার জন্য নিবিড় সম্প্রীতিতে কাজ করা উচিত বলে তিনি মনে করেন।

জনাব কাজী আশিকুর রহমান এফসিএস মূল প্রবন্ধ এর উপস্থাপককে তার বিস্তারিত উপস্থাপনার জন্য ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন যে সংস্থাগুলির ব্যবসায়ের সিদ্ধান্ত বর্তমান করের যে পরিস্থিতি রয়েছে তার উপর ভিত্তি করে নেয়। অতএব, আজ থেকে কার্যকর করা হবে এমন ভবিষ্যতের আইনের ভিত্তিতে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করা অত্যন্ত কঠিন। ব্যবসায়ী সম্প্রদায় ট্রেড অফের পূর্ববর্তী সম্ভাব্য করের প্রভাব সম্পর্কে উদ্বিগ্ন। রেট্রোস্পেকটিভ প্রভাবের সাথে রাজস্ব নীতিতে পরিবর্তনগুলি কেবলমাত্র সংস্থাগুলির পুরো ট্যাক্স পরিকল্পনাকেই বিকৃত করে না সাথে সাথে স্বল্প বা অতি প্রদর্শিত মুনাফার দিকেও নিয়ে যায়। তিনি আরও বলেন যে রাজস্ব নীতিতে অনির্দেশ্যতা কেবল বিদ্যমান বিনিয়োগকারীদের নিরুৎসাহিতই করে না, এটি সম্ভাব্য বিনিয়োগকারীদেরও সীমাবদ্ধ করে দেয়। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে করদাতারা করের হারের সুবিধার পরিবর্তে স্থিতিশীল আর্থিক পলিসি চান।

সিপিডি প্রোগ্রামের সভাপতি মোহাম্মদ সানাউল্লাহ এই প্রোগ্রামের সংক্ষিপ্তসার সকলের নিকট উপস্থাপন করেন। তাঁর বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন যে, আমাদেরকে কর ব্যবস্থার মধ্যেই বাঁচতে হবে। প্রতিবছর বাজেট আসবে যাতে পূর্ববর্তী কর এবং অতিরিক্ত করও থাকবে। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে অর্থনীতি বেশিরভাগ বেসরকারী খাতের অবদানের উপর নির্ভর করে তবে বেসরকারী খাতের কর্মীরা পিএফ এবং গ্র্যাচুইটির মতো দীর্ঘমেয়াদী সুবিধাসমুহ পেনশন প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে পারেন না, এদিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। তিনি ট্যাক্স পরিকল্পনার উপরেও বেশি জোর দিয়েছেন যা অস্থির পরিস্থিতিতে না হয়ে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক কর ব্যবস্থার উপর কাজ করে। তিনি প্রচারমূলক ব্যয়ের গ্রহণযোগ্যতা হ্রাস সম্পর্কে আলোকপাত করেছেন যা পরিণামে ব্যবসায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে যেমন লাভ, কর্মসংস্থান এবং রাজস্ব খাতে। আপিল করার আগে করের আমানত ১০% থেকে ২০% বাড়ানোও সৎ করদাতাদের নিরুৎসাহিত করবে। তিনি আরও জবাবদিহিতা আনার জন্য রাজস্ব প্রশাসন পুনর্গঠনের পক্ষে সিপিডিতে অংশগ্রহণকারীদের মতামতকেও হাইলাইট করেছিলেন। সেই লক্ষ্যে কর ব্যবস্থার ডিজিটালাইজেশন বহুলাংশের করদাতাদের দাবি ।

প্রধান অতিথি ব্যারিস্টার নীহাদ কবির বলেছিলেন যে কোভিড মহামারী চলছে এবং ৩৫% ভ্যালু চেইন বাধাগ্রস্থ হয়েছে। আমাদের দেশে কোন ধরণের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার হবে তা আমরা জানি না। এখন আমাদের উদ্বেগ হলো কোভিড প্রভাবের কারনে বেকারগন বিশেষত বিদেশী কর্মীরা ফিরে আসছেন সুতরাং আমাদের একটি বৃহত এসএমই পোর্টফোলিও দরকার। আমাদের জিডিপি বৃদ্ধির চেয়ে বাজেটের ঘাটতি এবং মুদ্রাস্ফীতির হার সম্পর্কে বিশেষত চিন্তা করা দরকার। তিনি অর্থবছরের নীতিমালায় যে কোনও পরিবর্তন আসার আগে এনবিআরের সক্ষমতা বৃদ্ধি, গবেষণা ও অধ্যয়ন এবং প্রভাব নিরূপণের উপর জোর দিয়েছিলেন । তিনি আরও উল্লেখ করেন যে নীতিগত কাঠামো তৈরি এবং স্বার্থের দ্বন্দ্ব থাকায় নীতি নির্ধারণ ও রাজস্ব প্রশাসনের কার্যক্রম পৃথক করার সময় এসেছে। তিনি করের হারের চেয়ে ট্যাক্স নেট বাড়ানোর বিষয়েও আলোকপাত করেন। তিনি বাংলাদেশে যথাযথ ও মৌলিক কর পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেন।

প্রাণবন্ত ভার্চুয়াল প্রোগ্রামটি একটি ইন্টারেক্টিভ প্রশ্নোত্তর পর্বের মাধ্যমে শেষ হয়েছিল যেখানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছিলেন। পরিশেষে, প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট কমিটির মেম্বার সেক্রেটারি জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম চৌধুরী এসিএস আইসিএসবির পক্ষ থেকে সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

দেশের বিভিন্ন তালিকাভুক্ত সংস্থা, কর্পোরেট নেতৃবৃন্দ এবং সরকারী প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ইনস্টিটিউটের বিপুল সংখ্যক সদস্য প্রোগ্রামে উপস্থিত ছিলেন।




মুদ্রার হার

নামাজের সময়সূচি